Tags » 'azan

The Grand Slam

There was a time I followed games, and knew which grand slams took place. Not now, I can only think of my own grand slam, and that is — getting through the day. 215 more words

Daily Prompts, Topic Ideas

Oral Cancer Screening in Gilbert, AZ

Oral Cancer Screening in Gilbert, AZAn oral cancer screening is an…
http://bit.ly/1HMLqTi

For Your Last Kiss

তোকে,

আমার এখানে এই দুপুরে নানান রকম শব্দ। আজান যখন শুরু হয়, তখন আশেপাশের শব্দ গুলো জ্যান্ত হয়ে ওঠে আরও। বসন্তের হাওয়ার হাঁটাচলার শব্দ মেলে গাছের পাতার আনাচে কানাচে। পাতায় পাতায় শিরশিরানি শব্দ। আর কতরকম পাখিদের দল।  কী কারণে, কাকে কে জানে, অনবরত বকবক বকবক।

আজান যখন শুরু হয়, তখন আশেপাশের শব্দ গুলো জ্যান্ত হয়ে ওঠে আরও। মন খারাপ হয়ে যায় আমার। চোখ বন্ধ করলে টের পাই, গন্ধ পাই মধ্যপ্রাচ্যের। হয়ত সিরিয়ার কোনও ভাঙাচোরা জনমানবহীন শহরে কেউ হা হয়ে বসে। আকাশের দিকে তাকিয়ে। আল্লার অপেক্ষায়। কিংবা প্যালেস্তাইনের মরু পাথরে বসে থাকা ছোট্ট কেউ। ওপার থেকে উড়ে আসা অনেক মর্টার, শেলের আওয়াজের শেষে, এই আজানের শব্দেই তো তার বেঁচে থাকার, বড় হয়ে ওঠার স্বপ্ন। এভাবেই আমার ছোট বাড়ি, তার জানলা দরজায় মিলে মিশে যায়, সুখা আফগানিস্তান থেকে, নীল নদীর পিরামিডওয়ালা শহর কিংবা লিবিয়া, ইরাক বা ইরান। হঠাত্ দুপুরের রোদ মাখা হাওয়া হয়ত উড়ে এল, মনে হল আমার চোখে মুখে লাগল উটের পা ছিটকানো গরম বালির রেশ।

আজান যখন শুরু হয়, তখন আশেপাশের শব্দ গুলো জ্যান্ত হয়ে ওঠে আরও। আমার ছোটোবেলার হারিয়ে যাওয়া শব্দগুলো মনখারাপের এখানে ওখানে ছিটকে আসে। কোথা থেকে অনবরত টুপটাপ জল পড়ার শব্ধ, আমার হারিয়ে যাওয়া বাড়ির সামনে ফেলে আসা তেজপাতা গাছের আদরের শব্ধ, হাওয়াই মিঠাইওয়ালার ঘন্টার টিংটিং, কারোর কাউকে খুঁজে পাওয়ার হাঁকডাক, অথবা, মা-এর কাপর কাচার এক নাগারের শব্দ। ভাবলে দুম করে একা লাগে, ভয় করে, শিকড়গুলো হারিয়ে যাচ্ছে না তো? এই যে ছোটোবেলা ছোটোবেলা ভাব, এখনও তো গেল না আমার, তবে? বড়বেলা বুঝি কেড়ে নিল সব। আমার মা-এর মেলা শুকনো কাপড়ের আওয়াজ বুঝি তখন মনে করিয়ে দেয়, ধুর পাগল, এখনও বুড়ো হওয়া বাকি। আজান যখন শুরু হয়, তখন আশেপাশের শব্দ গুলো জ্যান্ত হয়ে ওঠে আরও।

তোর ঠোঁট ছোঁওয়াগুলো এখনও কেন জানি না লেগে আছে, আমার চোখে মুখে। আমি বারবার পালাচ্ছি, পালাচ্ছি, পালাচ্ছি, তবু আমার ঠোঁট ভিজে, মনখারাপের চুমুতে। আজান যখন শুরু হল, তখন এসব মনখারাপ জ্যান্ত হয়ে উঠল আরও।

মনে হচ্ছে একবার শান্ত ভাবে ঠোঁটে ঠোঁট লাগাই তোকে। এরকম লুকোনো চুরোনো জোরজবরদস্তি,টেনশনওয়ালা নয়। শান্ত মতো, হতে পারে কোনও দুপুর, কোনও সন্ধে কিংবা কোনও নীল আলোর রাতে। নরম দুটো ছোঁবে যেখানে নিজেদের মতো। ভিজতে থাকবে সব কিছু। আমার মধ্যে অন্ধকার নামবে আরও। গাঢ় নীলচে অন্ধকার। আমি গলতে থাকব, পুড়তে থাকব। কাঁদতে থাকব চুপচাপ। আমার চোখের জল হয়ত তোর গালে, ঠোঁটেও লাগবে, আপত্তি জানাস না প্লিজ। ভিজতে দিস…।
ইচ্ছে রইল শেষ চুমু খাওয়ার, তোর সাথে। যেখানে তোর ঠোঁটে ঠোঁট রেখে হারিয়ে যাওয়ার সময়। শরীরে আমার যত লাল, তোকে দিয়ে দেব সব। আর আমি ফ্যাকাশে হতে থাকব ধীরে। তারপর আমায় দু হাতে ধরে রাখবি তুই। আমি হাঁটু গেড়ে বসে, তোর সামনে, মাথা নত। যা ইচ্ছে করতে পারিস, ইচ্ছে করলে নিয়ে যেতে পারিস কোনও পুরোনো, বহু পুরোনো নীলচে অন্ধকার ওয়ালা পাহাড়ি জঙ্গলে। যেখানে হারিয়ে যাওয়ার ভয় প্রতি মুহূর্তে। আমায় ধরে নিয়ে যেতে পারিস সেখানে। উঠতে পারিস, ওই পাহাড়ের চূড়োটায়, যেখান থেকেই হাত বাড়ালেই চাঁদ। পৃথিবীর সমস্ত মৃতেরা জেগে উঠবে সে রাতে। যে রাতে লাল গোলাপ রক্তে ভিজতে ভিজতে কালো হয়ে অমর হয়ে যায় একসময়। সে কালো গোলাপের দিব্যি, আমায় মুক্তি দিস। আমার শরীরকে ভাসিয়ে দিস পাহাড়ের চূড়া থেকে। কথা দিলাম, শূণ্যে হারানোর শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত তোকে ভালোবাসব। তোর চোখে চোখ রেখে পড়ব উঁচু থেকে নীচে। অনেক নীচে। যে নীচে নামতে ভয় পায় মৃতেরাও।
আর তুই… আবার ফিরে যাস, নিজের ঘরে, নিজের মতো করে। যেভাবে আমরা বেঁচে থাকি রোজ। হয়ত কোনও একদিন ভুলে যাবি আমায়।  তারপর কোনও এক অলস দুপুরে আজান যখন শুরু হবে, তখন তোর আশেপাশেরও শব্দগুলো জ্যান্ত হয়ে ওঠবে আরও। হয়ত মনে পড়ে যাবে আমার হারিয়ে ফেলা দুপুর। তোর আশেপাশের গাছেরাও হয়ত কথা বলে উঠবে তখন, কাকে না কাকে ডেকে চলা পাখিরা হয় ত ভিড় করবে তোর আশেপাশে। কিংবা সেই নীলচে রাত, যে রাতে, আমাকে হারিয়ে ফেলে দিয়ে এসেছিলি তুই। সে রকমই কোনও একদিন গোল চাঁদ উঠবে আকাশ জুড়ে। বাড়ির ছাদের ধারে একা এসে দাঁড়াস। নীলচে কুয়াশাগুলো ঠিক পৌঁছে যাবে তোর কাছে। একটু মনখারাপ করিস প্লিজ। আমার জন্য। আমি ঠিক থাকব তোর আশেপাশে, দেখিস..তোকে বিরক্ত না করেও, জানতে না দিয়েও। থেকে যাব।

সেই রাত আসার আগে, সেই হারিয়ে যাওয়ার নীল রঙ ফিরে আসার আগে, একটু ভালোবাসবি আমায়? শুধু ওই টুকুর জন্য? আমার দুপুরে দিব্যি, আমার পেয়েও না পাওয়া শব্দগুলোর দিব্যি, তুই চাইলেই হারিয়ে যাব। যেদিন বলবি। কিন্তু ততদিন, ঠোঁট ছুঁতে দিবি আমায়, আরেকবার? শান্ত ভাবে? প্লিজ..

ইতি, আমি

Love

আযান শোনার পর আযানের উত্তর দিতে হয় যেভাবে

আযান শব্দের অর্থ ধ্বনি। নামাজের সময় হলে মসজিদের মুয়াজিনগণ আযান দিয়ে মুসলমানদের নামাজের জন্য ডাকেন। কিন্তু নিয়ম হলো আযানের ধ্বনি শুনলে উত্তর দিতে হয়। অনেকেই আযানের উত্তর কিভাবে দিতে হয় তা জানে না। চলুন তাহলে জেনে নিই আযানের উত্তর দেয়ার সঠিক নিয়ম: 

ইসলাম ডেস্কঃ