Tags » Bangla Choti Golpo

গ্রুপ সেক্স চটি : আমি, আমার খানকি বউ আর সে...

আমি একজন সফল মানুষ। হ্যাঁ, সফল বলতে যা বোঝায় তার সবই আমার আছে। মনে করুন আমার নাম আনাম। ৪২ বছর বয়সেই আমি ১২টা গার্মেন্টস ফ্যাক্টরি, ৪টা এক্সেসরিজ ফ্যাক্টরি আর ৩টা টেক্সটাইল মিলের মালিক। শুধু গার্মেন্টস আর ব্যাকওার্ড লিংকেজ হিসেব করলে সব মিলে আমার বছরে ৬০০ মিলিয়ন ডলারের বেশি এক্সপোর্ট। এছাড়া ব্যাংকের ডিরেক্টরশীপ, সিমেন্ট ফ্যাক্টরি, সিজনাল বাল্ক ইম্পোর্ট, শেয়ারে বিনিয়োগ, থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া আর টার্কিতে জয়েন ভেঞ্চারতো আছেই। অর্থ আমার কাছে বানের জল না, সুনামির মত আসে। কিন্তু তার পরেও আমার সাধ মেটে না। টাকা আমার কাছে নেশার মত। কারন জীবনকে উপভোগ করার মূল জ্বালানীই হচ্ছে টাকা। আমি জীবনকে উপভোগ করি চরমভাবে। তাই আমার লাইফ স্টাইলও সেরকম এক্সট্রাভ্যাগান্ট। সাল্ভাতর ফ্যারাগামো, গুচি কিংবা ব্রুনো ম্যাগলি’র জুতো না হলে আমি পা গলাই না। প্যাটেক ফিলিপ ঘড়ি আমি পরি আমার শার্টের কালারের সাথে ম্যাচ করে। আমার বেসপোক স্যুট আসে ইটালি বা ফ্রান্স থেকে। ৫ফিট ১১ ইঞ্চির জিম করা আমাকে এসবে মানায়ও ভালো। যাক সে কথা, পেশাগত কারনে বিভিন্ন ফাইভ-ষ্টার হোটেলে বিজনেস পার্টিতো আমার থাকেই, কিন্তু আসল মজা হচ্ছে আমার স্পেশাল প্রাইভেট পার্টিগুলোতে। ইনফ্যাক্ট আমার আসল ডিলগুলো হয় সেখানেই। সেই পার্টি প্রতি দু’এক মাসে একবার হয় আমার বারিধারার পাঁচতলা ম্যান্সনের চার তলার ১০০০০ স্কয়ারফিট পার্টি ফ্লোরে। শুধু আমার নিজের ফোনে দাওয়াত দেয়া সুবিশেষ মানুষদের প্রবেশাধিকার সেখানে। ফরেন ডেলিগেট আর বিভিন্ন এম্বেসির ডিপ্লোমেটদের উদ্দামতার বন্যায় ভাসিয়ে দেই। হরেকরকম ব্ল্যান্ডেড আর সিংগেল-মল্ট হুইস্কি, কনিয়াক, ভদকাতো থাকেই, সাথে সিগারেট আর শিশায় ভরা থাকে নেশার রাজা গাঁজা। হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন গাঁজা। আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি আমার কাছে যেটা আসে সেটা পৃথিবীর সেরা গাঁজার একটা। সাথে মেশানো থাকে বিশ্বসেরা গওইথ, হগার্ড এন্ড কোং এর সুগন্ধি তামাক। তবে ইয়াবা, হেরোইন এসব একেবারেই নিষিদ্ধ। শহরের সব সেরা সেক্সি মডেল, মাঝে মাঝে লেবানিজ আর রাশিয়ান কলগার্ল, আর বন্ধুদের MILF শরীর দেখানো বউগুলো সব আমার ফরেন ডেলিগেট আর অন্যান্য গেস্টদের মাথা আউলা করে রাখে। পার্টির উদ্দাম আলো আর মিউজিক, মদ-গাঁজার উত্তাল নেশা, ক্লিভেজ, মিনি স্কার্ট আর যৌন হাতছানির বন্যায় ভেসে যায় সারা রাত। আমার পার্টিতে কেউ এলে ভাবতেই পারবে না যে এটা বাংলাদেশের কোন অনুষ্ঠান। আর আমার পার্টির একেবারে ঢোল পিটিয়ে ঘোষনা দেয়া নিয়মই হচ্ছে মেয়েদের সেক্সি আউটফিট। প্রতি পার্টি শেষে সবচেয়ে সেক্সি মেয়েকে দেয়া হয় “হর্নি কুইন” খেতাব। এবং প্রতিবারের হর্নি কুইনের জন্য থাকে এক্সক্লুসিভ পুরষ্কার। হোক সে হীরের কানের দুল কিংবা সেরা ব্র্যান্ডের একসেট পারফিউম। তবে আমার পার্টির সেরা আকর্ষন হচ্ছে আমার প্রিয় বউ ফারাহ। ওর কাছে আমার একটাই দাবী, পার্টির সবচেয়ে সেক্সি আউটফিট হতে হবে ওর। প্রতিটা পার্টিতে মেয়েদের, বিশেষত আমার মাগীবাজ বন্ধুদের মাগীটাইপ বউগুলোর প্রতিযোগিতাই থাকে আমার বউকে সেক্সি পোষাকের প্রতিযোগিতায় হারানোর। কিন্তু সে আশার গুড়ে বালি। পার্টিশেষে ৮০% ক্ষেত্রেই “হর্নি কুইন” খেতাব পায় আমার লক্ষীসোনা ৩৬ বছর বয়সী বউ ফারাহ। ফিগারটা যেন ঈশ্বর নিজ হাতে যত্ন করে সময় নিয়ে বানিয়েছেন। চেহারা, বুক, পেট, কোমড়, পাছা, থাই একেবারে ভরাট। সানি লিওনি’র স্লিম ভার্শন যেন। আমার সোনা বউটাকে অন্য পুরুষ দু’চোখ দিয়ে গিলে খাচ্ছে সেটা আমারা স্বামী-স্ত্রী দু’জনই খুব এঞ্জয় করি। সত্যি বলতে কি পার্টি শেষে বিছানায় আমরা দুজন গাঁজা আর মদের নেশায় এসব নিয়ে অশ্লীল ভাষায় হাসাহাসি করি আর চোদাচুদি করি। 89 more words

খানকি বউ