Tags » Bangla Choti

তপ্ত দুপুরে চাচিকে চুদলাম

কোনদিন চাচী`র দরজায় টোকা দেই নি, আজকেও দিলাম না, ঠেলা দিয়ে হুরমুর করে ঢুকে পড়লাম। সদ্য বাহির থেকে ফিরেছেন, ব্লাউজ ছেড়েছেন ঠিক ই, ব্রা খোলার সময় পাননি। দরজার শব্দেই জাপটে ধরলেন বুকের উপর, পাতলা শাড়ি`র নিচে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে কালো ব্রা`র ফিতা। জড়ানো গলায় বললেন, `কী রে তুই এলি কখন?` উত্তর দেয়ার ইচ্ছে করল না, তাছাড়া কাঁচা ঘুম ভাঙ্গা’র বিরক্তি তো আছেই। “তোর মা-বাপ কেউ আসেনি?” “আব্বা আসছে, চাচা’র সাথে কই গেল।” “হ…….মামলা-মোকদ্দমা কী নাকি আছে।” আমি চুপ করে রইলাম, চাচা’র বাসায় আসা খুব যে এনজয় করি তা না, বরং বিরক্তি লাগে যখন কাঠফাটা রোদের মধ্যে এতদূর হাঁটতে হয়। তবে এতদূর গ্রামে আসাটা ঠিক স্বত:প্রবৃত্ত নয়, প্রতি বছরই আব্বা’র মামলা মোকদ্দমা’র কোনও কাজ থাকে, আব্বা দু’চারদিনের অফিস ফেলে চলে আসেন। “দুপুরে ভাত খেয়েছিস, জলি কিছু দিছে?”

নিলার ভোদায় গরম মাল

মাস্টার্স করতে একটা বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকেছি। তেমন ভালোকোনো বিশ্ববিদ্যালয় না, এডমিশন সহজ বলে ঢুকে যেতে পেরেছি বলা যায়। প্রচুর বাঙালী ছেলেমেয়েরা একই কারনে এখানে ভর্তি হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে বিদেশী ছাত্রও অত্যাধিক।যাহোক, বিদেশ বিভুয়ে দেশী লোকজন পেয়ে ভালৈ লাগছিলো। ডর্মে উঠলাম আমি। ডর্মে খরচ বেশী বলা যায়। যারা আগে থেকে ব্যবস্থা করতে পেরেছে তারা নিজেরা মিলে বাসাভাড়া করে থাকে। আমার সে সুযোগ না থাকায় ডর্মেই উঠতে হলো। খুবই ছোট রুম, শেয়ার্ড বাথরুম করিডোরের অন্যান্য ছেলেদের সাথে। তবে হাইস্পিড ইন্টারনেট কানেকশন থাকায় অন্যান্য সুযোগ সুবধা নিয়ে মাথা ঘামানোর প্রয়োজন বোধ

ছাত্রী আমার রসের হাঁড়ি

আমার নাম শামস। একটা প্রাইভেট ভার্সিটিতে ফাইনাল ইয়ারে পড়ি। টিউশনি করে নিজের খরচ চালাই। কয়েকদিন আগে নতুন একটা টিউশনি পেয়েছি। ছাত্রীর নাম শান্তা। ইন্টারমিডিয়েট ফার্ষ্ট ইয়ার। সপ্তাহে তিনদিন দেড় ঘন্টা করে পড়াতে হবে। প্রথম দিন ছাত্রীকে দেখেই আমার মাথা ঘুরে গেল। অনেক ছাত্রী পড়িয়েছি। এদের মধ্যে অনেককেই চুদেছি। কিন্তু এর মত সেক্স বোম আর দেখিনি।প্রথমদিন থেকেই ছাত্রীর প্রতি আমার লালসা বাড়তে থাকল। এমনিতে ছাত্রী বেশ কঞ্জারভেটিভ। আমি পড়ানোর ফাঁকে যখন শান্তার উঁচু উঁচু খাড়া মাইগুলোর দিকে তাকিয়ে থাকতাম তখনই সাথে সাথে ও ওড়না দিয়ে পুরো বুক একবারে ঢেকে ফেলত। একদিন পড়াতে গেছি। বাসায় ঢুকেই বুঝলাম