Tags » Mustafa

Six interesting finds at Mustafa Centre

(Source: www.timeout.com)

On the nights you can’t sleep and there’s nothing in particular you’d like to do, head down to Mustafa Centre. Open 24/7, you can find almost anything across the seven levels of this mall – like these bizarre items.  249 more words

Lifestyle

Mustafa's Lament

Please…pause for a second… think about your friends – all your friends from childhood. Remember? The games you played, the laughter and fun, the ease and comfort you felt… only in their company. 996 more words

Iraq

বাংলাদেশ রেলওয়ের কালো বেড়াল কোথায়?

বাংলাদেশ অসৎ রাজনীতিবিদ,
দূর্ণীতিপরায়ন সরকারি কর্মকর্তা এবং
আর্থিক ও সামাজিক দিক থেকে
প্রভাবশালীদের স্বর্গরাজ্যে
পরিণত হয়েছে। পাকিস্তান আমলে
মাত্র বাইশটি প্রভাবশালী শিল্প
সাম্রাজ্যের অধিকারী পরিবারের কথা
শোনা গেলেও বাংলাদেশের
স্বাধীনতা পরবর্তী মাত্র চল্লিশ
বছরের মাথায় দশ থেকে
পনেরো হাজার কোটিপতি
পরিবারের সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু
এদের সবাই যে রাজনীতি,
ভুমিদস্যুতা, পেশীশক্তি, সন্ত্রাস ও
অবৈধ প্রভাব প্রতিপত্তির মাধ্যমে
বিপুল ধন সম্পদ, বিত্ত বৈভব ও আইন
বহির্ভূত উপায়ে অবৈধ ক্ষমতার
অধিকারী হননি। এই ধরনের অস এবং অন্যায়
কার্যকলাপের ফলাফল কোনক্রমেই শুভ হয়
না। এমনকি সব সম্ভবের দেশ বাংলাদেশেও
বড় বড় ঘাগু রাজনীতিবিদ, সামরিক
শাসক, গডফাদার, সন্ত্রাসী এদেরও
শেষ পর্যন্ত আইনের হাতে ধরা
পড়তে হয় অথবা নিজ গোপন
অপকর্মের কীর্তিকলাপ শেষ
পর্যন্ত জনসমক্ষে চলেই
আসে।
আলহাজ্জ মোঃ মোস্তফা কামাল
পাটোয়ারী সরকারী চাকুরী
জীবনে যেরূপ দূর্ণীতি,
স্বজনপ্রীতি, নিয়োগ বানিজ্যে
জড়িত ছিলেন, অবসরের পরে
অসৎ পথে উপার্জিত অর্থেরও
উল্লেখযোগ্য অংশ দিয়ে নিজ
গ্রামে স্বীয় মাতার নামে মসজিদ
স্থাপন সহ স্থানীয় মোল্লা এবং
অর্থলোভী তথাকথিত আলেম
সমাজের পেছনে খরচ করেন।
এতে একদিকে যেমন তিনি নিজ
গ্রামবাসীদের কাছে শ্রদ্ধার
পাত্রে পরিণত হন অন্যদিকে শেষ
বয়সে এসে ইসলামী
আন্দোলন ও শরিয়তের হুকুম,
আহকাম প্রতিষ্ঠায় নিজেকে প্রধান
সারির ব্যক্তিদের কাতারেও নিয়ে
আসেন। এয়াড়াও এসব ধর্মীয়
(লোক দেখানো কাজকর্ম) জনিত
গঠনমূলক (!) কাজ তার অতীত
জীবনের অসংখ্য সরকারি এবং
ব্যক্তিজীবনের কালিমা ঢাকার জন্য
যথেষ্টই ছিল। একদিকে নিজে
যেমন পরিশুদ্ধ হোন ঠিক তেমনি
পরবর্তী অর্ধ দশকব্যাপী (২০০৯
থেকে ২০১৪ সাল) নিজ এলাকা ও
তৎসংলগ্ন অঞ্চলে একক আধিপত্য
ও অন্যায় কার্যক্রমের দ্বারা নিজ এবং
নিকটাত্মীয়দের হীন স্বার্থ
চরিতার্থ করতে সক্ষম হন।
একজন অবসরপ্রাপ্ত রেলওয়ে
কর্মকর্তা কিরূপে নিজ
উপজেলাতে প্রভাবশালী
গডফাদারের ন্যায় হুকুমদারি এবং
খবরদারিত্ব কায়েম করেন? অথচ …
১। আলহাজ্জ মোঃ মোস্তফা কামাল
পাটোয়ারী প্রত্যক্ষভাবে বিগত
অর্ধদশকে কোন রাজনৈতিক
দলের সাথে জড়িত নন।
২। সাতান্ন বছর বয়সে রেলওয়ের
সরকারি চাকুরী হতে অবসর
গ্রহনের পরে ২০০৯ সালে উনার
বয়স ছিল ষাট বছর। অথচ ষাট
থেকে পঁয়ষট্টি বছর বয়সেও
( ২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল )
আশ্চর্য রকম ক্ষিপ্র এবং দখলদারি
মনোভাব নিয়ে চাঁদপুর জেলার
শাহরাস্তি উপজেলাতে এক প্রকার যা
খুশি তাই করে বেড়িয়েছেন বিগত
আওয়ামী লীগ সরকারের
আমলে। স্বভাবতই প্রশ্ন জাগে এই
রূপ অবৈধ ক্ষমতা ও প্রতিপত্তির উৎস
কোথায়?
৩। বাংলাদেশ রেলওয়েতে
চাকুরীকালে বিপুল পরিমানে সরকারি
সম্পদ আত্মসাতের সাথে জড়িত আলহাজ্জ্ব
মোঃ মোস্তফা কামাল পাটোয়ারী
যতই ইসলামী লেবাস দ্বারা নিজ
অতীত কুকর্ম ঢাকতে চেষ্টা
করুন না কেন তাতে বাস্তবতা
মিথ্যে হয়ে যায় না।
২০০৭ সালে চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি
উপজেলার সতেরো নং দক্ষিন
রায়শ্রী ইউনিয়নের বেরনাইয়া
গ্রামে যে চাকচিক্যময় মসজিদটি তাঁর
একক অর্থায়নে নির্মিত হয় সেটির
সাথে তুলনা করবার মতো আরেকটি
মসজিদ অত্র গ্রামের আশেপাশের
পাঁচটি গ্রামেও খুঁজে পাওয়া যাবে না।
কেননা …
১। আলহাজ্জ মোঃ মোস্তফা কামাল
পাটোয়ারী উক্ত মসজিদটির জন্য
নিজ জমি এবং দ্বিতল ফাউন্ডেশন
বিশিষ্ট মসজিদটির পুরো নির্মান ব্যয়
বহন করেন।
২। এখানে একসাথে ১২০ জন
ব্যক্তি নামাজ আদায় করতে পারেন।
এটি টাইলস ফিটিংস সমৃদ্ধ, ফ্যান এবং
নিজস্ব অজুখানা ও বাথরুম রয়েছে।
এছাড়া মুয়াজ্জিনের জন্যে আলাদা
কক্ষ মসজিদের বাইরে রয়েছে।
৩। বেরনাইয়া গ্রামে অবস্থিত
বেরনাইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে
অবস্থিত বেরনাইয়া জামে মসজিদ যা
সৌদি এক ধনকুবেরের অর্থায়নে
নির্মিত হয়েছিল ১৯৯০ এর দশকে
সেটি এই মসজিদেও চাইতে
আকারে সামান্য বড়। কিন্তু সরকারি
সহায়তা পুষ্ট এই মসজিদে আজো
টাইলস নেই এবং অনেকটাই
জৌলুসহীন বাংলাদেশ রেলওয়ের
অবসরপ্রাপ্ত দূর্ণীতিবাজ কর্মকর্তা
আলহাজ্জ মোঃ মোস্তফা কামাল
পাটোয়ারী এর একক অর্থায়নে
প্রতিষ্ঠিত মসজিদটির তুলনায়।
৪। বেরনাইয়া গ্রামের থেকে
দূরবর্তী কিছু গ্রামেও বিগত ২০০৭
– ২০০৮ সালে সৌদি আরবের
কয়েকটি বেসরকারি ধর্মীয় দাতব্য
সংস্থার অর্থায়নে কিছু মসজিদ
প্রতিষ্ঠিত/ সংস্কার / উন্নয়ন সাধন করা
হয় যার টাইলস ফিটিংস, ফ্যান তো
দূরের কথা শুধুমাত্র টিনশেড বিশিষ্ট
ঘরেই জুমার নামাজ কষ্ট করে
মুসল্লিগন আদায় করে আসছেন।
অথচ একজন সাবেক রেলওয়ে
অফিসার আলাদীনের চেরাগ এর
দৈত্য দ্বারা প্রাপ্ত (!) ( সরকারী
সম্পদ লুন্ঠনের মাধ্যমে প্রাপ্ত )
অর্থ দিয়ে ইসলামী কিছু সামাজিক
উন্নয়নের লোক দেখানো
কাজের দ্বারা নিজ শাপ এবং পাপ
মোচরেন কার্য সুচারূ রূপে
বাস্তবায়নে সক্ষম হন। একবিংশ
শতাব্দীতে নব্য সৃষ্ট আধুনিক
চেতনা (!) ও মনমানসিকতায় উদ্বুদ্ধ (!)
তথাকথিত আলেম সমাজের কতিপয়
আলেমের প্রত্যক্ষ
যোগসাজশের দ্বারা ধর্মভীরু, ধর্মপরায়ন,
অর্ধশিক্ষিত, দরিদ্র মুসলিম
গ্রামবাসীদের দাবিয়ে রাখা
আলহাজ্জ মোঃ মোস্তফা কামাল
পাটোয়ারী এর জন্যে এক প্রকার
ছেলে খেলা হয়েই দাঁড়ায়।

আলহাজ্জ্ব মোস্তফা কামাল পাটোয়ারী এর রেলওয়েতে চাকুরীকালীন দূর্ণীতির সচিত্র প্রতিবেদন।

বাংলাদেশ অসৎ রাজনীতিবিদ,
দূর্ণীতিপরায়ন সরকারি কর্মকর্তা এবং
আর্থিক ও সামাজিক দিক থেকে
প্রভাবশালীদের স্বর্গরাজ্যে
পরিণত হয়েছে। পাকিস্তান আমলে
মাত্র বাইশটি প্রভাবশালী শিল্প
সাম্রাজ্যের অধিকারী পরিবারের কথা
শোনা গেলেও বাংলাদেশের
স্বাধীনতা পরবর্তী মাত্র চল্লিশ
বছরের মাথায় দশ থেকে
পনেরো হাজার কোটিপতি
পরিবারের সৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু
এদের সবাই যে রাজনীতি,
ভুমিদস্যুতা, পেশীশক্তি, সন্ত্রাস ও
অবৈধ প্রভাব প্রতিপত্তির মাধ্যমে
বিপুল ধন সম্পদ, বিত্ত বৈভব ও আইন
বহির্ভূত উপায়ে অবৈধ ক্ষমতার
অধিকারী হননি। এই ধরনের অস এবং অন্যায়
কার্যকলাপের ফলাফল কোনক্রমেই শুভ হয়
না। এমনকি সব সম্ভবের দেশ বাংলাদেশেও
বড় বড় ঘাগু রাজনীতিবিদ, সামরিক
শাসক, গডফাদার, সন্ত্রাসী এদেরও
শেষ পর্যন্ত আইনের হাতে ধরা
পড়তে হয় অথবা নিজ গোপন
অপকর্মের কীর্তিকলাপ শেষ
পর্যন্ত জনসমক্ষে চলেই
আসে।
আলহাজ্জ মোঃ মোস্তফা কামাল
পাটোয়ারী সরকারী চাকুরী
জীবনে যেরূপ দূর্ণীতি,
স্বজনপ্রীতি, নিয়োগ বানিজ্যে
জড়িত ছিলেন, অবসরের পরে
অসৎ পথে উপার্জিত অর্থেরও
উল্লেখযোগ্য অংশ দিয়ে নিজ
গ্রামে স্বীয় মাতার নামে মসজিদ
স্থাপন সহ স্থানীয় মোল্লা এবং
অর্থলোভী তথাকথিত আলেম
সমাজের পেছনে খরচ করেন।
এতে একদিকে যেমন তিনি নিজ
গ্রামবাসীদের কাছে শ্রদ্ধার
পাত্রে পরিণত হন অন্যদিকে শেষ
বয়সে এসে ইসলামী
আন্দোলন ও শরিয়তের হুকুম,
আহকাম প্রতিষ্ঠায় নিজেকে প্রধান
সারির ব্যক্তিদের কাতারেও নিয়ে
আসেন। এয়াড়াও এসব ধর্মীয়
(লোক দেখানো কাজকর্ম) জনিত
গঠনমূলক (!) কাজ তার অতীত
জীবনের অসংখ্য সরকারি এবং
ব্যক্তিজীবনের কালিমা ঢাকার জন্য
যথেষ্টই ছিল। একদিকে নিজে
যেমন পরিশুদ্ধ হোন ঠিক তেমনি
পরবর্তী অর্ধ দশকব্যাপী (২০০৯
থেকে ২০১৪ সাল) নিজ এলাকা ও
তৎসংলগ্ন অঞ্চলে একক আধিপত্য
ও অন্যায় কার্যক্রমের দ্বারা নিজ এবং
নিকটাত্মীয়দের হীন স্বার্থ
চরিতার্থ করতে সক্ষম হন।
একজন অবসরপ্রাপ্ত রেলওয়ে
কর্মকর্তা কিরূপে নিজ
উপজেলাতে প্রভাবশালী
গডফাদারের ন্যায় হুকুমদারি এবং
খবরদারিত্ব কায়েম করেন? অথচ …
১। আলহাজ্জ মোঃ মোস্তফা কামাল
পাটোয়ারী প্রত্যক্ষভাবে বিগত
অর্ধদশকে কোন রাজনৈতিক
দলের সাথে জড়িত নন।
২। সাতান্ন বছর বয়সে রেলওয়ের
সরকারি চাকুরী হতে অবসর
গ্রহনের পরে ২০০৯ সালে উনার
বয়স ছিল ষাট বছর। অথচ ষাট
থেকে পঁয়ষট্টি বছর বয়সেও
( ২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল )
আশ্চর্য রকম ক্ষিপ্র এবং দখলদারি
মনোভাব নিয়ে চাঁদপুর জেলার
শাহরাস্তি উপজেলাতে এক প্রকার যা
খুশি তাই করে বেড়িয়েছেন বিগত
আওয়ামী লীগ সরকারের
আমলে। স্বভাবতই প্রশ্ন জাগে এই
রূপ অবৈধ ক্ষমতা ও প্রতিপত্তির উৎস
কোথায়?
৩। বাংলাদেশ রেলওয়েতে
চাকুরীকালে বিপুল পরিমানে সরকারি
সম্পদ আত্মসাতের সাথে জড়িত আলহাজ্জ্ব
মোঃ মোস্তফা কামাল পাটোয়ারী
যতই ইসলামী লেবাস দ্বারা নিজ
অতীত কুকর্ম ঢাকতে চেষ্টা
করুন না কেন তাতে বাস্তবতা
মিথ্যে হয়ে যায় না।
২০০৭ সালে চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি
উপজেলার সতেরো নং দক্ষিন
রায়শ্রী ইউনিয়নের বেরনাইয়া
গ্রামে যে চাকচিক্যময় মসজিদটি তাঁর
একক অর্থায়নে নির্মিত হয় সেটির
সাথে তুলনা করবার মতো আরেকটি
মসজিদ অত্র গ্রামের আশেপাশের
পাঁচটি গ্রামেও খুঁজে পাওয়া যাবে না।
কেননা …
১। আলহাজ্জ মোঃ মোস্তফা কামাল
পাটোয়ারী উক্ত মসজিদটির জন্য
নিজ জমি এবং দ্বিতল ফাউন্ডেশন
বিশিষ্ট মসজিদটির পুরো নির্মান ব্যয়
বহন করেন।
২। এখানে একসাথে ১২০ জন
ব্যক্তি নামাজ আদায় করতে পারেন।
এটি টাইলস ফিটিংস সমৃদ্ধ, ফ্যান এবং
নিজস্ব অজুখানা ও বাথরুম রয়েছে।
এছাড়া মুয়াজ্জিনের জন্যে আলাদা
কক্ষ মসজিদের বাইরে রয়েছে।
৩। বেরনাইয়া গ্রামে অবস্থিত
বেরনাইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে
অবস্থিত বেরনাইয়া জামে মসজিদ যা
সৌদি এক ধনকুবেরের অর্থায়নে
নির্মিত হয়েছিল ১৯৯০ এর দশকে
সেটি এই মসজিদেও চাইতে
আকারে সামান্য বড়। কিন্তু সরকারি
সহায়তা পুষ্ট এই মসজিদে আজো
টাইলস নেই এবং অনেকটাই
জৌলুসহীন বাংলাদেশ রেলওয়ের
অবসরপ্রাপ্ত দূর্ণীতিবাজ কর্মকর্তা
আলহাজ্জ মোঃ মোস্তফা কামাল
পাটোয়ারী এর একক অর্থায়নে
প্রতিষ্ঠিত মসজিদটির তুলনায়।
৪। বেরনাইয়া গ্রামের থেকে
দূরবর্তী কিছু গ্রামেও বিগত ২০০৭
– ২০০৮ সালে সৌদি আরবের
কয়েকটি বেসরকারি ধর্মীয় দাতব্য
সংস্থার অর্থায়নে কিছু মসজিদ
প্রতিষ্ঠিত/ সংস্কার / উন্নয়ন সাধন করা
হয় যার টাইলস ফিটিংস, ফ্যান তো
দূরের কথা শুধুমাত্র টিনশেড বিশিষ্ট
ঘরেই জুমার নামাজ কষ্ট করে
মুসল্লিগন আদায় করে আসছেন।
অথচ একজন সাবেক রেলওয়ে
অফিসার আলাদীনের চেরাগ এর
দৈত্য দ্বারা প্রাপ্ত (!) ( সরকারী
সম্পদ লুন্ঠনের মাধ্যমে প্রাপ্ত )
অর্থ দিয়ে ইসলামী কিছু সামাজিক
উন্নয়নের লোক দেখানো
কাজের দ্বারা নিজ শাপ এবং পাপ
মোচরেন কার্য সুচারূ রূপে
বাস্তবায়নে সক্ষম হন। একবিংশ
শতাব্দীতে নব্য সৃষ্ট আধুনিক
চেতনা (!) ও মনমানসিকতায় উদ্বুদ্ধ (!)
তথাকথিত আলেম সমাজের কতিপয়
আলেমের প্রত্যক্ষ
যোগসাজশের দ্বারা ধর্মভীরু, ধর্মপরায়ন,
অর্ধশিক্ষিত, দরিদ্র মুসলিম
গ্রামবাসীদের দাবিয়ে রাখা
আলহাজ্জ মোঃ মোস্তফা কামাল
পাটোয়ারী এর জন্যে এক প্রকার
ছেলে খেলা হয়েই দাঁড়ায়।

Mustafa Ali Added To WWE Cruiserweight Classic

WWE has added Mustafa Ali to the WWE Cruiserweight Classic roster page so it appears he’s been added to the tournament. His profile reads,

A veteran of the cruiserweight wars, Mustafa Ali will aim to bring his years of experience to Full Sail University in pursuit of the Cruiserweight Classic crown.

48 more words
Wrestling News And Events

Siddique Mustafa & Sons Group

Siddique Mustafa & Sons is an international group of companies with headquarters in Dubai, U.A.E.

The group is lead by Mr. W. M. Siddique, who is renowned internationally for his business savvy. 92 more words