Tags » Study

Attitude

Listen to Today’s Audio Goodie
(Have the Goodie read to you!)

… We know that we all have knowledge. Knowledge puffs up, but love edifies. And if any man think that he knows anything, he knows nothing yet as he ought to know. 203 more words

Bible Study

রেজিষ্ট্রি দলিলের আবশ্যকীয় শর্তাবলী

রেজিষ্ট্রি দলিলের আবশ্যকীয় শর্তাবলী

একটি রেজিষ্ট্রি দলিলে নিমড়ববর্ণিত শর্তাবলী পালন করতে হয় অন্যথায় দলিলটি স্বয়ং সম্পূর্ণ হবেনা:

১। শিরোনামঃ দলিলটি কো ধরণের দলিল তা প্রথম বর্ণনায় উলেলখ করতে হবে। যেমন: সাফকবলা, বায়নাপত্র আম- মোক্তারনামা ইত্যাদি।
২। পক্ষগণের পরিচয়ঃ দান গ্রহীতা, প্রথম পক্ষ, দ্বিতীয় পক্ষ ইত্যাদি। নাম বা প্রতিষ্ঠানের নাম, পিতার নাম, পেশা, ধর্ম, জাতীয়তা বাসস্থান ইত্যাদি। অর্থাৎ কোন কোন পক্ষের মধ্যে দলিলটি সম্পাদন ও রেজিষ্ট্রি হচ্ছে তার বর্ণনা।
৩। বিক্রীত স্বত্বের বর্ণনাঃ স্বত্বের ইতিহাস, পূর্বের দলিল নম্বর ইত্যাদি। অর্থাৎ বিক্রেতা সম্পত্তিটি কোন সূত্রে অর্জন করেছেন তার বিবরণ। তা নামে খতিয়ান ও জমা খারিজ আছে কিনা।
৪। পণঃ পণ ব্যতিরেকে কোন চুক্তি বৈধ হয় না। মনে রাখা আবশ্যক পনের লেনদেন স্বাভাবিক রীতি অনুযায়ী হতে হবে। অবাস্তর, অবিশ্বাস্য বা সন্দেহজনক পনের বিনিময়ে কোন সম্পত্তি হস্তান্তরিত হলে পরিনামে দলিলটি বাতিল হতে পারে।
৫। দখলঃ বিক্রিত সম্পত্তির দখল বুঝে দেওয়া হলো কিনা তা দলিলে উল্লেখ করতে হবে। দখল না বুঝে দিলে দলিলের প্রধান শর্ত অপূর্ণ রয়ে গেল।
৬। রক্ষিত শর্তাবলীঃ দাতা গ্রহীতার অর্জিত সম্পত্তির অধিকারসমূহের কিয়দংশ সংরক্ষিত রেখে দলিল সম্পাদন করতে পারেন।
৭। দন্ড বিষয়ক অংশঃ জমি জমার ক্রয় বিক্রয়ের ব্যাপারে প্রতারণার নজির ভুরি ভুরি রয়েছে। তাই প্রতারণামূলক কার্যের বিরুদ্ধে রক্ষাকবচ হিসাবে দন্ড বিষয়ক ব্যবস্থাদির দলিলে লিপিবদ্ধ রাখতে হয়।
৮। তারিখঃ দলিলে অবশ্যই তারিখ থাকতে হবে। দলিলে তারিখ না থাকলে উহা বাতিল বরে গণ্য হয়। বাংলা তারিখের সহিত ইংরেজি তারিখও দেওয়া উচিত।
৯। তফসিল বর্ণনাঃ বিক্রয়াধীন সম্পত্তির তফসিল বর্ণনা দলিলের নির্দিষ্ট অংশে উল্লেখ রাখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ইহাতে ভুল থাকলে সমস্ত দলিলের উদ্দেশ্য ব্যর্থ হইতে বাধ্য। তফসিলে জমির পরিমাণ, মৌজা, থানা, রেজিষ্ট্রী অফিস, জেলা, খতিয়ান নম্বর, দাগ নম্বর, জমির শ্রেণী, তৌজি, জমির চৌহদ্দি অর্থাৎ উত্তরে, দক্ষিণে, পূর্বে ও পশ্চিমে অবস্থানকারীম ব্যক্তি ও সম্পত্তির নাম, খাজনা ও করের পরিমাণ সম্পত্তির কোন হোল্ডিং নম্বর ও ওয়ার্ড নম্বর থাকলে তাহাও দলিলে উল্লেখ করতে হয়।
১০। দস্তখতঃ দলিল দাতা দলিলের উপরিভাগ দক্ষিণ পার্শ্বে ও শেষ পৃষ্ঠায় নীচে স্বাক্ষর করবেন। কোন কোন দলিলে একাধিক পক্ষের দস্তখত দিতে হয়। দলিলে পক্ষগণের স্বাক্ষর বা টিপ পর্ব শেষ হবার পর দলিল লেখকের নাম, সাকিন ও দুই তিন জন সাক্ষীর নাম ও সাকিন লিখতে হবে।
১১। কৈফিয়তঃ দলিল লিখবার সময় কোন স্থানে ভূল, কাটা, মোছা বা অস্পষ্ট হলে উহার পৃষ্ঠা ও লাইন ক্রম উল্লেখ করে দলিলের শেষাংশে কৈফিয়ত হিসাবে তাহা লিখে দলিল লিখক তাহার নীচে সহি করবেন।
১২। বিবিধঃ দলিল পরিস্কার ও পরিচ্ছন্নভাবে লিখিত হওয়া আবশ্যক। দলিল লিখতে ভাল কালি ব্যবহার করা দরকার। তবে বর্তমানে কম্পিউটার প্রযুক্তি ব্যবহৃত হওয়ায় লিখিত দলিল খুব কমই রেজিষ্ট্রেশনের জন্য উপস্থাপিত হচ্ছে।
১৩। বিক্রেতার নামে খতিয়ান থাকতে হবে। বিক্রিত সম্পত্তির নক্শা ম্যাপ ইত্যাদি থাকলে তাহা অনুচ্ছেদ স্বরূপ মূল দলিলের সহিত যুক্ত করে দিতে হবে।

Daily Laws

ভুমির সর্বোচ্চ সিলিং

১৯৮৪ সালের ভুমি সংস্কার অধ্যাদেশ অনুযায়ী ভুমির সর্বোচ্চ সিলিং:

১লা বৈশাখ ১৩৯১ বাংলা সাল তথা ১৪/৪/১৯৮৪ইং তারিখের পূর্বে বাংলাদেশের কোনো পরিবার বা সংস্থা সর্বোচ্চ ১০০ বিঘা পর্যন্ত জমি ক্রয়ের মাধ্যমে কিংবা দান, উত্তরাধিকার কিংবা অন্য কোনো উপায়ে অর্জন করতে পারত এবং ভোগ দখলে রাখতে পারত, কিন্তু সরকার ১৯৮৪ ইং সালের ভূমি সংস্কার অধ্যাদেশজারির মাধ্যমে ঘোষনা করেছেন যে, ১৪ই এপ্রিল ১ঌ৮৪ সাল তথা ১লা বৈশাখ ১৩৯১ বাংলা তারিখ থেকে কোনো মালিক পরিবার বা সংস্থা ৬০ বিঘার (২০ একর) অতিরিক্ত কোনো কৃষি জমি ক্রয় সুত্রে/ উত্তরাধিকার সুত্রে/দান বা হেবা কিংবা অন্য কোনো উপায়ে অর্জন করতে পারবেন না।

[১৯৮৪ সালের ভুমি সংস্কার অধ্যাদেশের৪ নং ধারার ১ উপধারা]

অত্র অধ্যাদেশের ৪ নং ধারার ৩ উপধারাতে বলা হয়েছে যে এই অধ্যাদেশের কোনো বিধান লংঘন করে যদি কোনো মালিক বা পরিবার বা ব্যক্তি বা কোনো সংস্থা যে কোনো পদ্ধতিতে নতুন কৃষি জমি অর্জন করেন এবং পূর্বে এবং নতুন অর্জিত জমির পরিমাণ যদি ৬০ বিঘার অতিরিক্ত হয়ে যায় তাহলে ৬০ বিঘার অতিরিক্ত জমি সরকারের হাতে ন্যস্ত হয়ে যাবে। তবে উল্লেখ্য যে ৬০ বিঘার অতিরিক্ত জমি গুলি যদি উত্তরাধিকার, দান (হেবা) এর মাধ্যমে অর্জিত হয়ে থাকে তাহলে উক্ত অতিরিক্ত জমির জন্য সরকার জমির মালিককে ক্ষতিপূরণ দিবেন।

Daily Laws

জাল দলিল চেনার কিছু টিপস দেওয়া হল :

জাল দলিল চেনার কিছু টিপস দেওয়া হল :

ক) দলিলের প্রকৃতি অনুযায়ী সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে চারটি রেজিস্ট্রার বা ভলিউমে লেখা হয়ে থাকে। যদি কোন দলিল নিয়ে সন্দেহ দেখা দিলে দলিলটির যাবতীয় তথ্য দিয়ে সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে নির্দিষ্টভাবে দরখাস্ত করে রেজিস্ট্রি অফিসে সংরক্ষণ করা দলিলের সাথে মিলিয়ে দেখতে হবে।

খ) একই জমি একাধিক মালিকের নামে মালিকানা করা থাকলে সরেজমিনে জমিটি যে এলাকায় সেখানে গিয়ে স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে মূল মালিক কে, তা খুঁজে বের করতে হবে।

গ) স্বাক্ষর জালিয়াতির ক্ষেত্রে ভূমি অফিস থেকে বিভিন্ন সিল পরীক্ষা করে ও স্বাক্ষর বিশেষজ্ঞের মাধ্যমে সত্যতা যাচাই করিয়ে নকল স্বাক্ষর নির্ণয় করতে হবে। তবে এ সময় কিছু বিষয় লক্ষ্য রাখতে হবে । যেমন :
# পুরনো দলিল কিন্তু সিল নতুন, কিংবা সরকারী বন্ধের দিনের উল্লেখিত তারিখ,
# পুরোনো চিহ্নিত সিল কিন্তু নতুন, বিশেষ করে অর্পিত বা মৃত ব্যক্তির সম্পত্তি জীবিত দেখিয়ে নকল করা।

ঘ) মিউটেশন বা নামজারিতে ধারাবাহিকতা ঠিক আছে কি না সহকারী কমিশনার (ভূমি) অফিস থেকে তা জেনে নিতে হবে। বিশেষ করে :
# বিক্রেতার খতিয়ানের সঙ্গে সিএস জরিপের মিল,
# জমিটি যতবার বিক্রি হয়েছে জরিপ খতিয়ানে জমির ঠিকানা ও দাগ নম্বরের পরিমাণ ততবার ঠিক উল্লেখিত আছে কিনা।

ঙ) বিক্রেতার কাছ থেকে জমির সঠিক মালিকানা জানতে ভায়া দলিল সহ সব দলিল চেয়ে নিয়ে সাব-রেজিস্ট্রি অফিস থেকে জমির ক্রমিক ও দলিল নম্বর মেলাতে হবে ।

চ) জমিটির কোনো আমমোক্তারনামা দলিল করা হয়ে থাকলে তাতে উভয় পক্ষের ছবি ব্যবহার হয়েছে কি না তা দেখে নিতে হবে ।

ছ) দানকৃত জমির ক্ষেএে :
# দলিল সম্পাদনের ও দখলের তারিখ,
# দলিলদাতার সঙ্গে গ্রহীতার সম্পর্ক এবং দলিলটি রেজিস্ট্রি করা হয়েছে কি না তা দেখে নিতে হবে ।

জ) সর্বশেষবার জমিটি বিক্রির সময় যে দলিল লেখকের সহায়তা গ্রহন করা হয়েছে তার নাম এবং ঠিকানা সংগ্রহ করে প্রয়োজনে তার সাথে সরাসরি দেখা করে আলাপ করে নিতে হবে ।

ঝ) দলিলের উল্টো পৃষ্টায় উল্লেখিত স্ট্যাম্প ভেন্ডারের নাম, ঠিকানা ও ক্রমিক নম্বর এবং বিক্রির তারিখ দেখে এর সত্যতা জেনে নিতে হবে

Daily Laws

Finding Myself Abroad - A Personal Narrative

There was fall breeze and a crispness in the air as I walked out of my morning Spanish class and passed the Towson University gym that I knew I should have turned toward in fear of the freshmen fifteen, instead I check my e-mail as I obsessively do every couple of minutes – just in case I missed something. 1,762 more words

MCOM 356: Features

N. CAROLINA: Direct Primary Care Contributes to Union County's Cost Savings

Health improvement and patient engagement driving cost reductions

By NC Academy of Family Physicians

Union County, North Carolina is on track to save $1 million in health care claims under its first year contract with Paladina Health, a direct primary care (DPC) organization. 108 more words

Business

Face study: Mayowa Nicholas

My first Superheroine painting went rather well, despite the fact that I never had an actual model in front of me at any point in time (this is all coming up in a future post, btw – I’m a little out-of-sequence).  332 more words

My Art